কেন্দুয়ায় লালন সংগীতের আসরে শ্রোতাদের মাতালেন শিল্পীরা

কেন্দুয়া প্রতিনিধি: নেত্রকোণার কেন্দুয়া উপজেলায় রাতব্যাপী এক লালন সংগীতের আসরে সাধক লালন সাঁইজি রচিত বিভিন্ন গান পরিবেশন করে শত শত শ্রোতাদের মাতিয়েছেন সংগীত শিল্পীরা। অষ্টম গুরু পর্দাপন দিবস উপলক্ষে উপজেলার চিরাং ইউনিয়নের কিসমত চিথোলিয়া গ্রামের বাসিন্দা লালন ভক্ত আব্দুল হালিম চিশতির বাড়ির আঙ্গিনায় মঙ্গলবার (৩০ নভেম্বর) সন্ধ্যা থেকে বুধবার (১ ডিসেম্বর) ভোররাত পর্যন্ত এ লালন সংগীত আসরের আয়োজন করে তরীকতে আহলে বাইত কেন্দুয়া উপজেলা শাখা।
আসরে সংগীত পরিবেশন করেন, কুষ্টিয়ার লালন চর্চা কেন্দ্র সদর আশ্রমের শিল্পী মনীষা মণি, গামছা নার্গিস, হারুন উদাস, মোহাম্মদ রফিক ও স্থানীয় শিল্পী আনিসুর রহমান সাগর। আসরে লালন সাঁইজির নানারকম তত্ত্বমূলক গান শুনে মুগ্ধ হয়ে বাড়ি ফিরেন শ্রোতারা।
গান শুনতে আসা নাজিম উদ্দিন নামে এক লালন ভক্ত জানান, হালিম চিশতির বাড়িতে প্রতিবছরই লালন সংগীত আসরের আয়োজন করা হয়। আমরা প্রতিবছরই গান শুনছে আসি। এমন গানের আসর আমাদের এলাকায় হয় না বললেই চলে। সাধক লালন সাঁইজির প্রতিটি গানের প্রতিটি বাণী অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। যা মানুষকে সত্য ও সঠিক পথে চলতে প্রেরণা যোগায়।
অনুষ্ঠানটির আয়োজক তরীকতে আহলে বাইত কেন্দুয়া উপজেলা শাখার আহবায়ক আব্দুল হালিম চিশতি জানান, যেদিন আমার গুরু আমার বাড়িতে পর্দাপন করেছিলেন, সেই দিনটিকে আমরা প্রতিবছর গুরু পর্দাপন দিবস হিসাবে পালন করে আসছি। এবার ছিল অষ্টম গুরু পর্দাপন দিবস। দিবসটি উপলক্ষে প্রতিবছর আমরা লালন সংগীতের আসরের আয়োজন করে থাকি। আসরে কুষ্টিয়া থেকে আগত লালন সংগীতের শিল্পীরা রাতব্যাপী গান করেন এবং আশপাশ এলাকাসহ দূর-দূরান্তের শত শত লালন ভক্তরা তাদের গান শুনতে আমার বাড়িতে ছুটে আসেন। এ আয়োজন প্রতিবছরই অব্যাহত থাকবে বলেও জানান তিনি।

 

 

শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।