মদনে ২ শ্রমিক নেতাকে কুপিয়ে জখম অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন, আটক-২

স্টাফ রিপোর্টার : পূর্ব শত্রুতার জেরে নেত্রকোণার মদনে প্রতিপক্ষের লোকজন হাবিবুর নামের এক শ্রমিক নেতাকে কুপিয়ে জখম করেছে। বুধবার সন্ধ্যার পর মদন পৌরসভার মদন-কেন্দুয়া সড়কের সিএনজি স্ট্যান্ডে  অতর্কিত হামলা করে তাকে জখম করা হয়। এ সময় হাবিবুরের ভাতিজা মোকাররম মিয়াকে কুপিয়ে আহত করা হয়। আহত দুই জনের অবস্থা আশঙ্কাজনক থাকায় উন্নত চিকিৎসার জন্য বুধবার রাত নয়টার দিকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।
এদিকে হামলায় জড়িত থাকার অভিযোগে  সোহেল মিয়া(৩৫) ও মোহাম্মদ আলী (২৭) নামে দুজনকে আটক করেছে পুলিশ। সোহেল ও মোহাম্মদ আলী চানগাও গ্রামের মৃত জানু মিয়ার ছেলে। এ ঘটনায় এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।
পুলিশ ও স্থানীয় লোকজন সূত্রে জানা গেছে, মদন উপজেলা শাখার অটো-সিএনজি শ্রমিক ইউনিয়নে সভাপতি হাবিবুর রহমানের সাথে উপজেলা আওয়ামী সেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি লিটন বাঙ্গালীর দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। দু’পক্ষের মধ্যে হত্যা মামলাসহ প্রায় এক ডজনের বেশী মামলা চলমান রয়েছে। ৪/৫ দিন আগে তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে লিটন বাঙ্গালীর ছেলে সোহাগের সাথে হাবিবুর রহমানের  ভাতিজা মোকাররমের তর্কবিতর্ক হয়। এরই জের ধরে বুধবার সন্ধ্যার পর লিটন বাঙ্গালীর লোকজন হাবিবুর ও তার ভাতিজার উপর অতর্কিত হামলা করে।
মদন থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা(ওসি) মুহাম্মদ ফেরদৌস আলম বলেন, আহত হাবিবুর ও মোকাররম এর অবস্থা আশঙ্কাজনক থাকায় ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। এ ঘটনায় সোহেল ও মোহাম্মদ নামের দুজনকে আটক করা হয়েছে। এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। বর্তমানে এলাকার পরস্থিতি শান্ত।

শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।