মদনে প্রতিবন্ধী কিশোরীকে ধর্ষণে অন্তঃসত্ত্বা করার অভিযোগে যুবক গ্রেপ্তার

বিশেষ প্রতিনিধি: নেত্রকোণার মদনে ধর্ষণে এক প্রতিবন্ধী কিশোরী(১৬)অন্তঃসত্ত্বা হবার ঘটনায় মামলার প্রধান আসামি আছির উদ্দিনকে গ্রেপ্তার করেছে মদন থানার পুলিশ। মঙ্গলবার উপজেলার মাঘান ইউনিয়নের মাঘান পশ্চিম পাড়া থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে ওই অভিযুক্তকে নেত্রকোণা আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। আছির উদ্দিন নেত্রকোণার খালিয়াজুরী উপজেলার বোয়ালী গ্রামের বাবুল মিয়ার ছেলে।
পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, আছির উদ্দিন দীর্ঘদিন ধরে মাঘান পশ্চিমপাড়া গ্রামের মামা রফিকুলের বাড়িতে বসবাস করছিলেন। রফিকুলের প্রতিবেশী ওই প্রতিবন্ধী কিশোরীর সাথে তার ভাগ্নে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলে। পরে বিয়ের প্রলোভন দিয়ে একাধিকবার ধর্ষণ করলে ওই কিশোরী অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়েন। এক পর্যায়ে ওই কিশোরী অসুস্থ হলে গত (১৮ জুন) চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যায় তার পরিবারের লোকজন। মদন হাসপাতালের চিকিৎসক নাদিয়া নাসরিন আল্ট্রাসনোগ্রাম রির্পোটে উল্লেখ করেন ওই কিশোরী চব্বিশ সপ্তাহের অন্তঃসত্ত্বা। পরে আছির উদ্দিনের পরিবারকে বিষয়টি জানালে এলাকার মাতব্বরগণ শালিসী বৈঠক করেও বিষয়টি মীমাংসা করতে পারে নি। পরে (২৪ জুন) বৃহস্পতিবার রাতে ওই কিশোরীর মা আছির উদ্দিনসহ ৩ জনকে আসামি করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মদন থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। এরই প্রেক্ষিতে আছির উদ্দিনকে মঙ্গলবার গ্রেপ্তার করে নেত্রকোনা আদালতে পাঠানো হয়েছে।
অভিযুক্ত আছির উদ্দিনের মা আছমা আক্তার জানান, আমার ছেলে আছির উদ্দিন যদি অপকর্ম করে তাহলে তাদের ডাক্তারী পরিক্ষা করা হবে। ডাক্তারী রিপোর্টে প্রমাণিত হলে মেয়েটিকে আমার ছেলের বউ হিসাবে গ্রহণ করবো।
মদন থানার ভারপ্রাপ্তা কর্মকর্তা (ওসি) ফেরদৌস আলম বলেন, ধর্ষণে অন্তঃসত্ত্বা প্রতিবন্ধ কিশোরীর মায়ের মামলার প্রেক্ষিতে আছির উদ্দিনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। মঙ্গলবার তাকে নেত্রকোণা আদালতে পাঠানো হয়েছে।

শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।