একমাত্র ভাইও খুন ! কী হবে এতিম দু’বোনের ?

স্টাফ রিপোর্টার : ময়মনসিংহের ভালুকায় ইটভাটায় একপক্ষের বেলচার আঘাতে নেত্রকোণার জাহাঙ্গীর আলম (২০) নিহত হন। সে মৃত শাহেদ মিয়ার ছেলে। সে কলমাকান্দা সদরের মাইজপাড়া গ্রামের মৃত শাহেদ মিয়ার ছেলে।

সংসারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ভাইয়ের লাশের জন্য অপেক্ষায় ছিল পিতা-মাতাহারা দুই বোন নুরজাহান (১৮) ও শাহানা (১৫)।সংসারের সুখ ফেরাতেও বিবাহযোগ্য বোনদের মুখে অন্ন যোগাতে একমাত্র ভাই জাহাঙ্গীর আলম (২০) গিয়েছিলেন ইট ভাটায় কাজ করতে। সংসারের একমাত্র উপার্জনক্ষম মৃত ভাইয়ের মুখ এক পলক দেখতে দিনভর অপেক্ষায় ছিল এতিম দুই বোন। অবশেষে সন্ধ্যার পর মরদেহ বাড়িতে পৌঁছালে বোনদের কান্নায় স্তব্ধ থাকে চারপাশ। এরপর তড়িঘড়ি করে প্রতিবেশীরা দাফন সম্পন্ন করে মঙ্গলবার রাত নয়টার দিকে। কিন্তু প্রতিবেশীদের প্রশ্ন, কি হবে মা বাবা ও একমাত্র ভাইকে হারানো যুবতী দুই বোনের?

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় নিহতের বাড়ির উঠানে দেখা যায় লাশ বহনের জন্য একটি খাটিয়া।এসময় ঘরের বারান্দায় দুই বোন ও স্বজনদের কান্নার আহাজারি এবং গ্রামের মানুষের মাঝে চলে শোকের মাতম।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে,ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলায় প্রতিপক্ষের হামলায় নিহত হন ইটভাটার শ্রমিক জাহাঙ্গীর আলম (১৮)। এ সময় আহত তার দুই মামাতো ভাই সহ তিন শ্রমিক।
এ ঘটনায় সোমবার রাতেই নিহতের মামাতো ভাই কালা মিয়া বাদী হয়ে ১১ শ্রমিককে আসামি করে ভালুকা মডেল থানায় একটি মামলা করেছেন।

ওইদিন সকালে ভালুকা উপজেলার ৫নং বিরুনীয়া ইউনিয়নের বাইরপাথার এলাকায় আফাজ ব্রিক্সফিল্ড নামে একটি ইটভাটায় এ ঘটনা ঘটে।এ ঘটনায় জড়িত ১০ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

এলাকাবাসীরা জানান, আফাজ ব্রিক্সফিল্ড নামে ওই ইটভাটায় নেত্রকোণা ও পঞ্চগড় জেলার পৃথক দুটি শ্রমিক দল ইট তৈরির কাজ করত। ওইদিন সকালে পঞ্চগড় জেলার শ্রমিকদের ইট বানানোর বালি শেষ হয়ে গেলে তারা নেত্রকোণা জেলার শ্রমিকদের বালু আনতে পাঠায়।

এ সময় নেত্রকোণার শ্রমিকরা বালু দিতে রাজি না হলে দুপক্ষের কথা কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে পঞ্চগড় জেলার শ্রমিকরা বেলচা ও লাকড়ি দিয়ে নেত্রকোণা জেলার চার শ্রমিকের ওপর অতর্কিতে হামলা চালায়। এতে কমলাকান্দা উপজেলার বাসিন্দা জাহাঙ্গীর আলম (২০), কালা মিয়া (৪০), সবুজমিয়া (১৮) ও হাছান মিয়া (৩০) আহত হন।
আহতদের মধ্যে জাহাঙ্গীর ও কালা মিয়াকে প্রথমে ভালুকা সরকারি হাসপাতাল এবং পরে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (মমেক) ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন থেকে সোমবার বিকালে জাহাঙ্গীর আলম মারা যান।
জাহাঙ্গীর আলমের মাথায় বেশ কয়েকটি আঘাতের চিহ্ন ছিল।
খবর পেয়ে ভালুকা মডেল থানা পুলিশ ইটভাটায় অভিযান চালিয়ে পঞ্চগড়ের ১০ শ্রমিককে গ্রেফতার করে।
গ্রেফতারকৃতরা হলেন– আব্দুর রাজ্জাক (১১), আব্দুল কুদ্দুস (২০), আ. সালাম (২৬), আসাদুজ্জামান (১৯), মিজানুর রহমান (২০), ফরিদুল ইসলাম (২৩), শিপন ইসলাম (১৮), মমতাজুর রহমান মতি (২১),জয়নাল ইসলাম(১৮) ও স্বপন (২৫)।গ্রেফতারকৃতরা সবাই পঞ্চগড় জেলার বাসিন্দা।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ভালুকা থানার এসআই জীবন বর্মণ বলেন, গ্রেফতারকৃত আসামিদের পাঁচ দিন করে রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠানো হবে। নিহতের মরদেহ ময়নাতদন্ত শেষে গ্রামের বাড়ি কলমাকান্দায় পাঠানো হয়েছে।

ভালুকা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাইন উদ্দিন বলেন, এ ঘটনায় নিহতের মামাতো ভাই বাদী হয়ে ১১ জনকে আসামি করে থানায় একটি মামলা দায়ের করেছে।

 

শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।