আগাম বন্যার পূর্বাভাস: বোরো ফসল কি কৃষকের গোলায় উঠবে ?

ফয়েজ আহম্মদ হৃদয়: হাওরাঞ্চলের কৃষক পরিবারের প্রধান উৎসব পহেলা বৈশাখ । নতুন ফসল ঘরে তুলার আনন্দে মেতে উঠে ওই দিনে। ধান পেকে সোনালি হয়ে আছে ফসলের মাঠ। কিন্তু নতুন ফসল ঘরে তুলার বৈশাখী আনন্দ নেই কৃষক পরিবারগুলোতে। একদিকে বোরো ফসল ঘরে তোলা নিয়ে সংশয়, অন্যদিকে করোনা ভাইরাস সংক্রমণ। এই দুই নিয়ে দুশ্চিন্তায় আর আতঙ্কে দিন কাটাচ্ছেন মদন উপজেলার হাওরাঞ্চলের কয়েক হাজার কৃষক পরিবার। চৈত্র মাসের শেষের দিকেই ধান কাটা শুরু হওয়ার কথা থাকলেও বৈশাখ মাস শুরু হলেও এখনো অধিকাংশ জমিতে ধান কাটার ব্যবস্থা হয়নি শ্রমিক সংকটে । এদিকে নদীর পানি বৃদ্ধি পাচ্ছে। আগাম বন্যায় হাওরের ফসল ডুবি নতুন কিছু নয়। অন্যান্য বছরের মতো এবারও যদি বন্যা দেখা দেয় তবে পরিবার পরিজন নিয়ে পথে বসা ছাড়া আর কোনো উপায় থাকবে না বলে একাধিক কৃষক জানান। এক ফসলি বোরো ধান কেটে গোলায় উঠাতে পারবে কিনা এ নিয়ে অনিশ্চয়তায় রয়েছেন তারা।

মঙ্গলবার দুপুরে তলার হাওরে গেলে চোখে পড়ে এক কৃষক ৯ম শ্রেনি ও ৩য় শ্রেনি পড়ুয়া দুই ছেলে নিয়ে ধান কাটছে। তাদের সাথে কথা বললে তারা বলেন, ক্ষেত পাকছে। করোনা ভাইরাইসের করণে দূর থেকে শ্রমিক আসছে না। স্কুল যেহুতু বন্ধ আছে তাই বাধ্য হয়েই ধান কাটতে আইছি। নদীর পাড়ের জমি, এহন যদি না কাটি কাল দিন পরেই ডুবে যাইবো।

কৃষি অফিস সূত্রে যানায়ায়, এ বছর মদন উপজেলায় ১৭ হাজার ২শ ৫০ হেক্টর জমিতে বোরো আবাদ হয়েছে। অন্যন্যা বছরের তুলনায় এবছর বাম্পার ফলন।

কৃষি অফিসার মো. নাজমূল হাসান বলেন, বোরো ধান কাটা শুরু হয়েছে। করোনার আতংকে শ্রমিকের কিছু সংকট থাকলেও কৃষি বিভাগ এর ব্যবস্থা নিচ্ছে। তিনি আরো বলেন দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের শ্রমিকরা মদনের তলার হাওরে ধান কাটতে আসার জন্য আমাদের অফিসে যোগাযোগ করছে। কিছু সংখ্যক শ্রমিক এসেছে। সারাবিশ্ব যেহুতু করোনার ঝুকিতে তাই হাওরাঞ্চলে তাদের নিরাপদ বাসস্থানের ব্যবস্থা করার জন্য চেষ্টা করা হচ্ছে । এছাড়া কৃষি বিভাগের ১৩ টি কম্বাইন হার্ভেস্টার মাঠে কাজ করছে। আশা করছি ধান কাটায় শ্রমিকের সংকট হবে না।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. ওয়ালীউল হাসান বলেন, হাওরে বোরো ধান কাটা শুরু হয়েছে। কৃষকদের ধান ঘরে তোলার স্বার্থেই সরকার ধান কাটার মেশিনের ব্যবস্থা করছে । তাই শ্রমিক সংকট হবে না বলে আমি মনে করি।

শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।