ট্র্যাজিডি দিবসে ৫ মিনিট স্তব্ধ নেত্রকোণা

স্টাফ রির্পোটার: ৮ ডিসেম্বর নেত্রকোণায় বোমা হামলা ট্র্যাজিডি দিবস আজ। সকাল ১০.৪০ থেকে ১০.৪৫ পর্যন্ত ৫ মিনিট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের সামনে নীরবে দাঁড়িয়ে থেকে স্তব্ধ নেত্রকোণা কর্মসূচী পালন করে। এসময় শহরের সমস্থ যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। যে যেখানে থাকেন সেখানেই ‌দাঁড়িয়ে নিহতের প্রতি শ্রদ্ধা জানান।
সকাল সাড়ে দশটায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের সামনে স্তব্ধ নেত্রকোণা কর্মসূচীতে উপস্থিত ছিলেন সংরক্ষিত মহিল আসনের সংসদ সদস্য হাবীবা রহমান খান শেফালী। নারী নেত্রী বেগম রোকেয়া, উদীচির সভাপতি মোস্তাফিজুর রহামান, জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শামসুর রহমান (ভিপি লিটন), উদীচির সম্পাদক অসীম ঘোষসহ বিভিন্ন সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।
৮ ডিসেম্বর নেত্রকোনা ট্য্রাজিডি দিবস উপলক্ষে ট্র্যাজিডি দিবস উদ্যাপন কমিটি দিনব্যাপী বিভিন্ন কর্মসূচী হাতে নিয়েছে। কর্মসূচীর মধ্যে রয়েছে, সকাল ৯টা ৩০ মিনিটে উদীচী কার্যালয়ের সামনে কালো পতাকা উত্তোলন ও কালো ব্যাজ ধারণ, সকাল ১০টায় উদীচী কার্যালয়ের সামনে নির্মিত স্মৃতিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণ, সকাল ১০.৪০ থেকে ১০.৪৫ পর্যন্ত ৫ মিনিট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের সামনে নীরবে দাড়িয়ে থেকে স্তব্ধ নেত্রকোণা কর্মসূচী পালন, সকাল ১১টায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার থেকে প্রতিবাদী মিছিল, বেলা ১২টায় শহীদদের কবর জিয়ারত ও শহীদ পরিবারবর্গের সাথে সাক্ষাত, বিকাল ৫টা ৩০ মিনিটে শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে সন্ত্রাস, মৌলবাদ ও সাম্প্রদায়িকতা বিরোধী সমাবেশ ও গণজাগরনী প্রতিবাদী গণ সঙ্গীত।
জমিয়াতুল মুজাহিদিন বাংলাদেশ (জেএমবি) ২০০৫ সালের ৮ ডিসেম্বর সকালের দিকে জেলা শহরের অজহর রোডস্থ উদীচী কার্যালয়ের সামনে আত্মঘাতী বোমা হামলা চালায়। বোমা হামলায় আত্মঘাতী কিশোরসহ উদীচী শিল্পী গোষ্ঠীর যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক খাজা হায়দার হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক সুদীপ্তা পাল শেলী, মোটর মেকানিক্স যাদব দাসসহ ৮ জন নিহত এবং কমপক্ষে ৫০ জন আহত হয়।
এ ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে জেএমবি প্রধান শায়খ আব্দুর রহমান, সিদ্দিকুর রহমান ওরফে বাংলা ভাই, শামরিক শাখার প্রধান আতাউর রহমান সানি, জেএমবি কমান্ডার আসাদুজ্জামান, সালাহ্উদ্দিন এবং ইউনূসসহ ৮ জনকে আসামী করে পৃথক দুটি মামলা দায়ের করে। ইতিমধ্যে ঢাকা দ্রুত বিচার ট্র্যাইব্যুনাল আদালত-২ নেত্রকোণায় বোমা হামলা মামলার ৭ আসামীকে ফাসিঁ ও বাংলা ভাইয়ের স্ত্রীকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড প্রদান করেন।
বামা হামলায় নিহতদের শ্রদ্ধা ভরে স্মরণ ও নতুন প্রজন্মের সামনে সন্ত্রাস ও জঙ্গীবাদ বিরোধী সামাজিক ও সাংস্কৃতিক দুর্বার প্রতিরোধ আন্দোলন গড়ে তুলার লক্ষ্যে নেত্রকোণার সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলো সম্মিলিতভাবে প্রতি বছরের ৮ ডিসেম্বর নেত্রকোণা ট্র্যাজিডি দিবস পালন করে আসছে।

শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।