প্রায় চারমাস পর ফিরে এসেছে নাটোরের যুবলীগ নেতা মিলন

নাটোর প্রতিনিধি: রহস্যজনকভাবে নিখোঁজের ৩ মাস ২৩ দিন পর ফিরে এসেছে নাটোরের যুবলীগ নেতা জামিল হোসেন মিলন। বৃহস্পতিবার ভোরে পায়ে হেঁটে একাই তিনি বাড়ি ফেরেন। এদিকে, মিলন ফিরে আসার খবরে এলাকায় আনন্দের বন্যা বাইছে। তাকে একনজর দেখতে বাড়িতে ভিড় করছে উৎসুক জনতা। মিলন শহরতলীর তালতলা হাফরাস্তার এমদাদুল হক নিয়াজির ছেলে। নিখোঁজের সময় তিনি আওয়ামী লীগ থেকে সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান প্রার্থী ছিলেন। মিলনের নামে সদর থানা সহ বিভিন্ন থানায় অস্ত্র, মাদক, সরকারি কর্মকর্তাকে মারধরের এবং সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের কারণে অন্তত ১৩টি মামলা রয়েছে।
জামিল হোসেন মিলন জানান, তাকে অন্ধকার একটি কক্ষে আটকিয়ে রাখা হয়েছিল। কে বা কারা, কি জন্য তাকে আটকে রেখেছিল তা জানাতে অপারগতা প্রকাশ করেন তিনি। জনগনের দোয়ার জীবন ফিরে পেয়েছেন বলে জানান তিনি।
মিলনের বাবা এমদাদুল হক নিয়াজি বলেন, গত ফেব্রুয়ারিতে সাদা পোশাকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পরিচয়ে তার ছেলেকে তুলে নিয়ে যায়। পরে মিলনের সন্ধানে সদর থানা ও র‌্যাব অফিসে যোগাযোগ করেও তার কোন খোঁজ পাওয়া যায়নি। মিলন নিখোজেঁর পর থেকেই আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তাকে তুলে নিয়ে যাওয়ার বিষয়টি অস্বীকার করে আসছিল। মিলন নিখোঁজের খবরে বিক্ষুব্ধ এলাকাবাসী ঐ দিন সকালে শহরে বিক্ষোভ মিছিল বের করে। পরে তারা নাটোর প্রেসক্লাবের সামনে রাস্তা অবরোধ করে রাখে। এরপর বিক্ষুব্ধরা বিক্ষোভ মিছিল সহকারে শহরের বড়হরিশপুর বাইপাস মোড়ে অবস্থান নিয়ে মহাসড়ক অবরোধ করে। দেড় ঘণ্টা অবরোধের কারণে নাটোর থেকে রাজধানীসহ উত্তর এবং দক্ষিণবঙ্গের বাস চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। মহাসড়কে সৃষ্টি হয় তীব্র যানজটের। পুলিশের আশ্বাসে বেলা ১২টার দিকে অবরোধ তুলে নেয় তারা। পরে নাটোর প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করা হয়। সপ্তাহব্যাপী চলে এমন কর্মসুচি। তারপর আন্দোলনের তীব্রতা কমতে থাকে। মিলন ফিরে আসার আশা ছেড়ে দেয় সবাই।

শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।