সুনামগঞ্জের জমিদার পরিবারের শিশু জায়ান শ্রীলঙ্কায় বোমা হামলায় নিহত

হাবিব সরোয়ার আজাদ,সুনামগঞ্জ থেকে: শ্রীলঙ্কায় বর্বরোচিত সিরিজ বোমা হামলায় নিহত শেখ সেলিমের নাতী ছোট্র জায়ান চৌধুরী (৭)র পৈতৃক বাড়ি সুনামগঞ্জের বনেদী জমিদার পরিবারে।
শ্রীলঙ্কা সিরিজ বোমা বিস্ফোরণে দুই শতাধিকের ওপর লোকজনের হতাহতের ঘটনার পর দেশটিতে অবস্থিত বাংলাদেশি দূতাবাসের বরাতে এক শিশুসহ দুজন বাংলাদেশি নাগরিকের প্রথমে নিখোঁজ থাকার তথ্য পাওয়া যায়।
পরে রোববার (২১ এপ্রিল) রাতে তাদের খোঁজ মেলে। তারা হলেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম এমপির মেয়ে শেখ সোনিয়ার স্বামী মশিউল হক চৌধুরী প্রিন্স ও তার জেষ্ঠ্য নাতি জায়ান চৌধুরী।
গুরুতর আহত অবস্থায় তাদেরকে উদ্ধার করার পর শ্রীলঙ্কায় রাজধানী কলম্বোর একটি হাসপাতালে নেয়া হয় চিকিৎসার জন্য। এর মধ্যে শিশু জায়ানের অবস্থা সংকটাপন্ন ছিল। গুরুতর আহত হয়ে হাসপাতালে রয়েছেন মশিউল হক চৌধুরী প্রিন্স।
এদিকে নিহত জায়ান চৌধুরীর পৈতৃক বাড়ি সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলার ভাটিপাড়ার জমিদার বাড়ি। প্রয়াত জায়ানের পিতা মশিউল হক চৌধুরী প্রিন্স দিরাই ভাটিপাড়ার জমিদার মতিনুল হক চৌধুরী ওরফে এম এইচ চৌধুরী’র ছেলে।
উল্ল্যেখ যে, আওয়ামীলীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম এমপি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ফুফাত ভাই।
এদিকে শেখ সেলিমের ব্যক্তিগত সহকারি ইমরুল হক গণমাধ্যকে জানান , গুরুতর আহত পিতা-পুত্র শ্রীলঙ্কায় একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। পরে সেখানেই জায়ানের মৃত্যু হয়।
তিনি আরও জানান,রোববার রাতেই কলম্বোর উদ্দেশ্যে রওনা হয়েছেন নিহতের পরিবারের সদস্যরা।
পারিবারিক সূত্রের বরাতে জানা যায়, পরবর্তীতে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে ঘটনার বিস্তারিত জানানো হবে।
ইমরুল হক আরো জানিয়েছিলেন, ঘটনার পর পরই শেখ সেলিম মশিউল হক চৌধুরী প্রিন্সের সঙ্গে কথা বলেছেন। তারা শ্রীলঙ্কায় একটি হাসপাতালে চিকিৎসকদের পর্যবেক্ষণের মধ্যে আছেন। তাদের অবস্থা সম্পর্কে পরে জানা যাবে বলে জানান ইমরুল হক। এরপর তার কিছু সময় পরই পাওয়া যায় এই দুঃসংবাদ।
এর আগে ব্রুনাইয়ের দারুসসালামে প্রবাসী বাংলাদেশিদের এক অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘শেখ ফজলুল করিম সেলিমের মেয়ের পরিবার শ্রীলঙ্কায় বোমা হামলার শিকার হয়েছে। সেলিমের মেয়ে-জামাই ও নাতি এ সময় একটি রেস্টুরেন্টে খাচ্ছিলেন। সেখানে একটি বোমা বিস্ফোরণ ঘটে। বিস্ফোরণে মেয়ে-জামাই আহত হন এবং বিকাল পর্যন্ত নাতির কোনও খোঁজ পাওয়া যায়নি।’
রোববার (২১ এপ্রিল) সকালে খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বীদের ইস্টার সানডে উদযাপনকালে রাজধানী কলম্বো ও তার আশপাশের তিনটি গির্জা এবং তিনটি হোটেলসহ বেশ কয়েকটি স্থাপনায় বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এতে এখন পর্যন্ত ২১৫ জন নিহত হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। আহত হয়েছেন অন্তত ৪৫০ জন। নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

শর্টলিংকঃ
সকল প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না। পাঠকের মতামতের জন্য কৃর্তপক্ষ দায়ী নয়। লেখাটির দায় সম্পূর্ন লেখকের।